You are currently viewing ক্যানোনিকাল ট্যাগ কী? | 5 Important Canonical Tag Facts Bangla
ক্যানোনিকাল ট্যাগ

ক্যানোনিকাল ট্যাগ কী, এর অর্থ কী, এর সঠিক উদ্দেশ্য কী এবং কিভাবে এটিকে সেটআপ করা উচিত এসকল বিষয় এই আর্টিকেলে তুলে ধরা হয়েছে।

ক্যানোনিকাল ট্যাগ কী?

ক্যানোনিকাল ট্যাগ কে ২০০৯ সালে গুগল, ইয়াহু, মাইক্রোসফট একসাথে মিলে প্রকাশ করেছিল। এটি সার্চ ইঞ্জিনের একটি সাধারণ সমস্যার সমাধান করতো। তবে এটা সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজারদের জন্য একটা সমস্যা সৃষ্টি করেছিল।

প্রথমেই আমরা বলবো ক্যানোনিকাল ট্যাগ এর সাথে ডুপ্লিকেট কনটেন্ট শব্দের কোনো মিল নেই।

আরও পড়ুনঃ ব্লগ কন্টেন্ট লিখার টিপস

ক্যানোনিকাল এর অর্থ হলো পছন্দসই বা ফেভারিট। একই রকম অনেকগুলো বিষয়ের মধ্যে যেটি পছন্দসই সেটিকে ক্যানোনিকাল বলা যেতে পারে।

বাস্তব জীবনের কিছু উদাহরণ তুলে ধরা যেতে পারে।

  • সব রকম ফলই আপনার ভালো লাগে, তবে আপনার কাছে পেয়ারা বেশি পছন্দ। সেক্ষেত্রে পেয়ারা আপনার ক্যানোনিকাল ফল।
  • এস ই ও এর সকল টপিক আপনার পছন্দ, তবে আপনার কাছে অন পেইজ এস ই ও বেশি ভালো লাগে। তাহলে অন পেইজ এস ই ও আপনার ক্যানোনিকাল এস ই ও টপিক।

তাহলে হয়তো আপনি বুঝতে পেরেছেন যে, একই রকম অনেকগুলো জিনিসের মাঝে যেটি সবচেয়ে প্রিয় সেটিকে ক্যানোনিকাল বলা হয়।

এখন এস ই ও তে ফিরে আসি।

আপনার ওয়েবসাইটে অনেক ক্ষেত্রেই একই কনটেন্ট যুক্ত অনেকগুলো পেইজ হয়ে যায়। সার্চ ইঞ্জিন চায় যে আপনি তাকে বলুন একই রকম এই পেইজগুলোর মধ্যে কোনটি আপনার সবচাইতে প্রিয় অর্থাৎ ক্যানোনিকাল।

আপনি সকল একই রকম পেইজে একই লিংক এলিমেন্ট যুক্ত করেন। যেটি অনেকটা নিচের কোড এর মতো হয়।

<link rel="canonical" href="http://abcd.com/page.html"/>
  • সর্বপ্রথমে আপনি এখানে লিংক এর রিলেশনশিপ উল্লেখ করেছেন। যেটি ক্যানোনিকাল।
  • এরপর যেটি আপনার প্রিয় পেইজ অর্থাৎ ক্যানোনিকাল সেটির ইউআরএল উল্লেখ করেন।

এটি ক্যানোনিকাল ট্যাগ এর সাধারণ ব্যাখ্যা ছিল। এখন কিছুটা বিস্তারিত আলোচনা করা হবে।

একই রকম পেইজ থাকবার দুইটি কারণ

ওয়েবসাইটে একই রকম পেইজ থাকবার দুইটি কারণ হতে পারে।

  1. টেকনিক্যাল
  2. কনটেন্ট

টেকনিক্যাল

টেকনিক্যাল কারণ বলতে বোঝানো হচ্ছে যখন আপনার পেইজ একটাই হয় কিন্তু এটিকে বিভিন্ন ইউআরএল দিয়ে ওপেন করা জেতে পারে।

উদাহরণস্বরূপ আপনার ওয়েবসাইটের এড্রেস যদি হয় abcd.com/page তাহলে এটিকে অনেকভাবেই ওপেন করা যেতে পারে। যেমন,

  • http://abcd.com/page.html
  • https://abcd.com/page.html
  • http://www.abcd.com/page.html
  • https://www.abcd.com/page.html
  • http://abcd.com/page.html/
  • https://abcd.com/page.html/
  • http://www.abcd.com/page.html/
  • https://www.abcd.com/page.html/

এখানে দেখা যাচ্ছে আপনার একটি পেইজে পৌঁছানোর জন্য অনেকগুলো ইউআরএল রয়েছে।

আপনার কাছে, আমার কাছে কিংবা সাধারণ ভিউয়ার এর জন্য এই ইউআরএল গুলো একই রকম মনে হবে। তবে সার্চ ইঞ্জিনের কাছে এগুলো ভিন্ন ভিন্ন মনে হয়। এই সকল ইউআরএল গুলো সার্চ রেজাল্টে অবস্থান পাবার জন্য একটি আরেকটির সাথে কম্পিটিশন করে। যা আপনার পেইজ রাংক কে ডিভাইড করে ফেলে।

আপনি একটি পেইজই বানিয়েছেন। আপনার পেইজের কনটেন্ট একদম ইউনিক। কিন্তু সার্চ ইঞ্জিন এই ভিন্ন ভিন্ন ইউআরএল গুলোতে একই কনটেন্ট দেখতে পায়। যার ফলে সার্চ ইঞ্জিন কনফিউজ হয়ে যায়।

এই জন্য আপনি ক্যানোনিকাল ট্যাগ ব্যবহার করে সার্চ ইঞ্জিনকে প্রেফার করবেন বা আপনার প্রিয় ইউআরএল কোনটি সেটি বলে দিবেন।

কনটেন্ট

দ্বিতীয় কারণটি হলো কনটেন্ট। অনেকক্ষেত্রে অনেকেই একদম ডুপ্লিকেট হোক কিংবা অনেকটাই একই রকম কনেন্টকে একের অধিক পেইজে ব্যবহার করেন। তখন এটি ভালো প্রাকটিস হবে যে সার্চ ইঞ্জিনকে নিজেই বলে দেন যে কোন পেইজটি ক্যানোনিকাল।

হুবহু নকল পেইজ গুলো এরকম পেইজ যেগুলোর কনটেন্ট হুবহু একই রকম হয়। কিছু পেজ রয়েছে যেগুলোর সদৃশতা কাছাকাছি। এই পেইজগুলোর কনটেন্ট এর অনেকটা একই রকম হয় তবে কিছুটা পার্থক্য থাকে।

ক্যানোনিকালের প্রয়োজনীয়তা

এই তথ্যগুলো জানবার পর আপনার হয়ত প্রশ্ন হতে পারে যে ক্যানোনিকালের প্রয়োজনীয়তা কী? এর উত্তর অত্যন্ত সহজ।

যখন আপনি ভিন্ন ভিন্ন পেইজে ক্যানোনিকাল ট্যাগ যুক্ত করেন এবং সেগুলোর জন্য একটি পেইজকে ক্যানোনিকাল হিসেবে বলে দেন তখন আপনি সার্চ ইঞ্জিনকে বোঝাচ্ছেন, এই সকল পেইজ থেকে পাওয়া সকল রাংকিং সিগন্যাল গুলোকে একীভূত করে ওই একটি পেইজকে দিতে।

ক্যানোনিকাল ট্যাগ আপনার সাইটের লিংক জুস কে একীভূত করে। এজন্য ক্যানোনিকাল ট্যাগকে অবশ্যই সঠিকভাবে ব্যবহার করা উচিত।

পেইজে ক্যানোনিকাল ট্যাগ ব্যবহারের পদ্ধতি

পেইজে ক্যানোনিকাল ট্যাগ ব্যবহারের পদ্ধতি খুবই সহজ। ওয়ার্ডপ্রেস এবং অন্যানো মাধ্যমগুলোতে অনেক প্লাগিন পাওয়া যায়।

  • ওয়ার্ডপ্রেসে আপনি ইয়োস্ট এস ই ও প্লাগিন ব্যবহার করলে এই অপশনটি পাবেন। এজন্য আপনাকে এডিট পোস্ট এ গিয়ে পেইজের একদম নিচে এডভান্স অপশনে ক্যানোনিকাল ইউআরএল যুক্ত করার অপশন পাবেন।
  • ব্লগার ডিফল্টভাবে এই এলিমেন্ট টিকে হেডার অপশনে দিয়ে থাকে। ব্লগার এর ক্ষেত্রে আপনাকে কিছু করতে হবে না।
  • এইচ টি এম এল ব্যবহার করে কাস্টম কোডেড ওয়েবসাইট তৈরী করা হলে এই এলিমেন্টটিকে পেইজের হেড সেকশনে যুক্ত করতে হয়।

ক্যানোনিকাল ট্যাগ সংক্রান্ত কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয়

ক্যানোনিকাল ট্যাগ এক প্রকার ইঙ্গিত

ক্যানোনিকাল ট্যাগ এক প্রকার ইঙ্গিত। এটা কোনো আদেশ নয়।

উদাহরণস্বরূপ আপনি ওয়েবসাইট এ ক্যানোনিকাল ট্যাগ ব্যবহার করেছেন। আপনি চাইছেন আপনার ওয়েবসাইটের পেইজগুলোকে সার্চ রেজাল্টে যেন https://www ভার্সনে দেখায়। এই অনুযায়ী ক্যানোনিকাল সাজেশন দিলেও সার্চ ইঞ্জিন আপনার দেয়া সাজেশনকে ইগনোর করে অন্য ভার্সন দেখাতেই পারে।

এটি আপনার কোনো ভুল নয়। আপনার পেইজ এর জন্য একটি স্পেসিফিক ক্যানোনিকাল বানানোর অর্থ এই নয় যে বাকি ইউআরএল টাইপগুলোকে সার্চ ইঞ্জিন ক্রল করবে না।

সার্চ ইঞ্জিন বাকি সকল পেইজকে ক্রল করবে, এবং এমন হতেও পারে যে আপনার দেয়া ক্যানোনিকাল সাজেশনকে ইগনোর করে অন্য ভার্সন সার্চ রেজাল্টে দেখাচ্ছে।

আপনার সেটাপে কোনো সমস্যা নেই এবং আপনার কোনো সমাধানও খুঁজতে হবে না। এটি সম্পূর্ণ সার্চ ইঞ্জিনের উপর নির্ভর করে যে আপনার দেয়া ক্যানোনিকাল সাজেশন দেখাবে নাকি দেখাবে না।

ক্যানোনিকাল ট্যাগ 301 রিডাইরেক্ট থেকে সম্পূর্ণ ভিন্ন

ক্যানোনিকাল ট্যাগ 301 রিডাইরেক্ট থেকে সম্পূর্ণ ভিন্ন। এই দুইটি বিষয়ের মাঝে একটুও বিভ্রান্তি থাকা উচিত নয়। 301 একটি http রেস্পন্স কোড, যেটি ব্রাউজার সার্ভার থেকে পায় এবং এই কোড ব্রাউজারকে বলে যে এই ইউআরএল এ যেসকল কনটেন্ট ছিল তা এই নতুন ইউএরএল এ স্থায়িভাবে সরে গিয়েছে।

ক্যানোনিকালের ক্ষেত্রে এই পেইজ গুলো অপরিবর্তিত থাকে। শুধু সার্চ ইঞ্জিনকে বলতে হয় কোন ভার্সনটি ক্যানোনিকাল।

ক্যানোনিকাল ট্যাগকে ক্রস ডোমেইনেও ব্যবহার করা যায়

যদি এমন হয় যে আপনার একই কনটেন্ট দুইটি ভিন্ন ভিন্ন ডোমেইনে রয়েছে তাহলে আপনি একটি ডোমেইনের পেইজকে ক্যানোনিকাল সেট করতে পারেন। এর ফলে আপনার দুইটি ওয়েবসাইটের রাংকিং সিগন্যাল কম্বাইন্ড থাকবে।

একটি পেইজ নিজেকে রেফার করে এমন ক্যানোনিকাল ট্যাগ ব্যবহার করা উচিত

একটি পেইজ নিজেকেও রেফার করে এমন ক্যানোনিকাল ট্যাগ ব্যবহার করা উচিত।

উদাহরণস্বরূপ মনে করেন আপনার ওয়েবসাইটে তিনটি পেইজ রয়েছে। পেইজ A, পেইজ B এবং পেইজ C। তিনটিতেই একই কনটেন্ট রয়েছে। এক্ষেত্রে আপনি পেইজ এ কে ক্যানোনিকাল বানাতে চাচ্ছেন।

সেক্ষত্রে আপনি পেইজ B তে লিংক এলিমেন্ট যুক্ত করে সাজেস্ট করেছেন যে পেইজ A ক্যানোনিকাল।

<link rel="canonical" href="http://abcd.com/pageB"/>

সেক্ষত্রে আপনি পেইজ C তে লিংক এলিমেন্ট যুক্ত করে সাজেস্ট করেছেন যে পেইজ A ক্যানোনিকাল।

<link rel="canonical" href="http://abcd.com/pageC"/>

এর পাশাপাশি আপনাকে পেইজ A তে লিংক এলিমেন্ট যুক্ত করে সাজেস্ট করতে হবে পেইজ A ক্যানোনিকাল। যাতে কোন বিভ্রান্তি সৃষ্টি না হয়।

কারণ আপনি যদি শুধু পেইজ B এবং পেইজ C তে ক্যানোনিকাল সেট করেন তাহলে সার্চ ইঞ্জিন বুঝবে যে পেইজ B এবং পেইজ C এর মাঝে পেইজ A ক্যানোনিকাল। কিন্তু পেইজ A এবং পেইজ C এর মাঝে কোনটি ক্যানোনিকাল এটি বুঝতে পারবে না। কারণ পেইজ C বলছে A ক্যানোনিকাল, কিন্তু পেইজ A সেটি বলছে না সে ক্যানোনিকাল নাকি ক্যানোনিকাল না। যার ফলে সার্চ ইঞ্জিন বুঝতে পারবে না।

 <link rel="canonical" href="http://abcd.com/pageA"/> 

এজন্য পেইজ A যেন নিজেকে রেফার করে এজন্য ক্যানোনিকাল ট্যাগ ব্যবহার করতে হবে। গুগল থেকে সেলফ রেফারেন্সিং ক্যানোনিকাল ট্যাগ ব্যবহার করা কে রেফার করা হয়েছে।

ক্যানোনিকাল ট্যাগ এবং এইচ রেফ ল্যাং ট্যাগ এর কনফিউশন

দুইটি ট্যাগকে দেখলে ক্যানোনিকাল ট্যাগ অনেক ক্ষেত্রেই এইচ রেফ ল্যাং ট্যাগ এর সাথে কনফিউশন তৈরী করে ফেলে। তাড়াহুড়া করে দেখলে অনেকটাই একই রকম দেখা যায়।

কিন্তু আসলে এদের মাঝে বিশাল পার্থক্য রয়েছে। এইচরেফ ল্যাং ট্যাগ সার্চ ইঞ্জিনকে বলে পেইজটি কোন দেশ, কোন ভাষা এর জন্যে যথাপযুক্ত। আর ক্যানোনিকাল বলে এই পেইজটি বাকি সকল রেফারেড পেইজগুলো থেকে বেস্ট। এক্ষেত্রে ভাষা যেটাই হোক না কেন কিছু যায় আসে না।

তাই যখন আপনি ভিন্ন ভিন্ন পেইজের জন্য ক্যানোনিকাল ট্যাগকে সেট করেন তখন অবশ্যই খেয়াল রাখবেন একটি ভাষায় লিখা পেইজকে আরেকটি ভাষায় লিখা পেইজকে ক্যানোনিকাল দেয়া যাবে না।

উদাহরণস্বরূপ, যদি আপনার ওয়েবসাইটে দুটি পেইজ থাকে abcd.com/bangla এবং abcd.com/english তাহলে নিচের মতো করে ক্যানোনিকাল ট্যাগ যুক্ত করবেন।

abcd.com/bangla পেইজের জন্য নিচের কোড টি যুক্ত করবেন।

<link rel="alternate" href="http://abcd.com/english" hreflang="en-in"/>
<link rel="alternate" href="http://abcd.com/bangla" hreflang="bn-in"/>
<link rel="canonical" href="http://abcd.com/bangla"/>

abcd.com/english পেইজের জন্য নিচের কোড টি যুক্ত করবেন।

<link rel="alternate" href="http://abcd.com/english" hreflang="en-in"/>
<link rel="alternate" href="http://abcd.com/bangla" hreflang="bn-in"/>
<link rel="canonical" href="http://abcd.com/english"/>

ভালো করে দেখুন, দুইটি পেইজের ক্ষেত্রে এইচ রেফ ল্যাং ট্যাগ এর কোড পরিবর্তন হচ্ছে না। কিন্তু ক্যানোনিকাল ট্যাগ এর কোড পরিবর্তিত হচ্ছে। যেই ভাষার পেইজ সেই ভাষাতেই ওই পেইজের ক্যানোনিকাল ট্যাগ সেট করতে হবে। না হলে সার্চ ইঞ্জিন কনফিউজড হয়ে যাবে দুইরকম বার্তা পাবার ফলে।

এটিই ছিল ক্যানোনিকাল ট্যাগ নিয়ে আমাদের বিস্তারিত আলোচনা। এই ট্যাগ এর সঠিক ব্যবহার শিখুন এবং ওয়েবসাইটে প্রয়োগ করুন।

Monjirul

I am passionate about content publishing in Blogger and WordPress. I am working on many blogs. But Travel Nature Exhibition is my favorite one. The website address is travelnature.info

Leave a Reply